ট্রাম্প তালিবান তামাশা-পর্ব ২ | The Background

Saturday, October 24, 2020

Contact Us

Google Play

ট্রাম্প তালিবান তামাশা-পর্ব ২

আবু সঈদ আহমেদ
বিশ্ববাণিজ্যকেন্দ্রে বিমানহানার প্রত্যুত্তরে আফগানিস্তানে আক্রমণ শুরু করে মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট। তার কিছু আগেই আফগানিস্তানের উত্তরের জোটের নেতা তালিবান হামলায় নিহত হোন। মার্কিন জোটের কার্পেট বম্বিংএর মোকাবিলায় সেরকম কোন প্রতিরোধ গড়ে তুলতে না পেরে কাবুল ছেড়ে চলে আসে তালিবান। অন্যদিকে কাতারে কাতারে আফগান বাস্তুহারা হয়ে পাকিস্তানের অরক্ষিত সীমানা পেরিয়ে আসতে থাকেন। আফগানিস্তানে আক্রমণে মার্কিন জোটসঙ্গী মুশারফের সামনে এটা একটা বড় সমস্যা হিসেবে দেখা দেয়। অর্থনীতি-কূটনীতিতে বিপাকে পড়া মুশারফ যুক্তরাষ্ট্রকে আফগানিস্তান আক্রমণের সহায়তা করে ধর্মীয় মহলে চক্ষুশূল হয়েছিলেন। আফগানিস্তান থেকে আসা এই উদ্বাস্তুর ভিড় যার মধ্যে তালিবান জঙ্গিরাও ছিল, মুশারফকে আরও কোণঠাসা করে দেয়। বেশ কয়েকবার প্রাণঘাতী আক্রমণের মুখে পড়েন মুশারফ। তালিবানদের পুরোপুরিভাবে নিকেশ করার আগেই যুক্তরাষ্ট্র শুরু করে নতুন যুদ্ধ, ইরাকে সাদ্দাম হোসেনের বিরুদ্ধে। ফলে অসমাপ্ত যুদ্ধ বিপজ্জনক হয়ে ওঠে মুশারফের  জন্য। এই পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের আফগান উপজাতি অধ্যুষিত কাবাইলি এলাকায় সেনা অভিযান চালিয়ে নতুন দুশমন তৈরি করেন মুশারফ। এই অভিযানের কঠোর বিরোধিতা করে বিশ্বজয়ী প্রাক্তন ক্রিকেটার ইমরান খান অভিহিত হন তালিবান খান নামে। এই অভিযানের পর থেকে পাকিস্তানে শুরু হয় সন্ত্রাসবাদের নয়া অধ্যায়। লাল মসজিদ অবরোধ ছিল মুশারফ জমানার অন্যতম ভয়াবহ ঘটনা। মুশারফের পতনের পরেও সন্ত্রাসবাদ চলতে থাকে। ম্যারিয়ট হোটেল, সৈন্যপ্রশিক্ষণকেন্দ্র যার অন্যতম শিকার হয়। ২০১১ সালের মে মাসে পাকিস্তানের অ্যাবটাবাদেই নিহত হন বিশ্ববাণিজ্যকেন্দ্রের হামলার মূল অভিযুক্ত ওসামা বিন লাদেন।
অন্যদিকে তালিবান পতনের পর আলোচনার ভিত্তিতে আফগানিস্তানে প্রতিষ্ঠিত হয় রাষ্ট্রপতিভিত্তিক আফগান ইসলামী প্রজাতন্ত্র। পাশতুন নেতা হামিদ কারজাই যিনি যুদ্ধের সময় বাইকে করে মার্কিন সাহায্যের আশায় ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন, শপথ নেন নতুন রাষ্ট্রপতিরূপে। উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় দেশ ভারতেও হিন্দুত্ববাদী বাজপেয়ী সরকারের পতন ঘটে নির্বাচিত হয় জাতীয় কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন জোট। বামপন্থীদের সমর্থন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীরূপে শপথ নেন প্রাক্তন রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর ও অর্থমন্ত্রী মনমোহন সিং। আফগানিস্তানের পুনর্গঠনে ভারতের ব্যাপক ভূমিকা থাকলেও তালিবান সম্পর্কে ভারতের সরকারি ও সামাজিক মনোভাব ছিল বরাবরের মতই নেতিবাচক।
আগের পর্বটি পড়ুন এখানে 
Facebook Comments