দূর্বার আন্দোলন কেন্দ্রীয় সরকারকে পিছু হটতে বাধ্য করছে | The Background

Monday, November 29, 2021

Contact Us

Google Play

Breaking News

দূর্বার আন্দোলন কেন্দ্রীয় সরকারকে পিছু হটতে বাধ্য করছে

নাজিব আনোয়ার

ভারতজুড়ে বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে আপামর জনগণ যেভাবে গর্জে উঠেছেন, তা এক কথায় অভূতপূর্ব এক ঘটনা। ইদানিংকালে এইরকম এক গণজাগরণ ভারতের বুকে দেখা যায়নি। এই আইন অর্থাৎ CAA ও তার সঙ্গে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা NRC-র বিরুদ্ধে ক্ষোভ বেড়েই চলেছে। তার প্রশমনের কোন লক্ষণ নেই। জনগণের এই জঙ্গি মেজাজের আঁচ গেরুয়া শিবিরে যে বেশ লেগেছে, সেটা গত কয়েকদিনে বিজেপি নেতাদের নানান বয়ানে স্পষ্ট। সরকার ব্যাকফুটে এটা টের পাওয়া যাচ্ছে।

শুক্রবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক থেকে মানুষের মন থেকে ভয়ভীতি দূর করার প্রয়াস লক্ষ্য করা গেছে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস পত্রিকায় কেন্দ্রের সংখ্যালঘু মন্ত্রকের মন্ত্রী মুক্তার আব্বাস নাকভী বলেন, NRC  নিয়ে এখনও নাকি কোন আলোচনায় হয়নি। এই নিয়ে কথাবার্তা কোন অর্থ নেই। বিজেপি’র সাধারণ সম্পাদক রাম মাধবও বলেন, এটা এখনও প্রস্তাব আকারে আছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন ২০২১ সালের আগে এই নিয়ে এগোনো হবেনা।

কিন্তু এটা ভুললে হবেনা যে খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীই বারবার বলেছেন, CAA-র পরেই NRC হবে। এটা ক্রমানুসারেই হবে।

আবার সরকারের পিআইবি দফতর অনেকগুলি টুইটের সাহায্যে CAA এবং NRC আলাদা বলে দাবী করার চেষ্টা করেছে।

পিআইবি একটি সাক্ষরহীন ডকুমেন্টে বলেছে, CAA ভারতীয় কোন নাগরিকের উপর বলবত হবেনা ও ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইন মোতাবেক কোন বিদেশী ভারতীয় নাগরিক হবার আবেদনকে রদ করবে না। তথাপি, চলমান এই আন্দোলনের সূচিমুখ হল CAA মুসলমানদের ব্যতিরেকে অন্য সব ধর্মের মানুষদের নাগরিক হবার সুযোগ করে দিয়েছে, যদি তারা প্রস্তাবিত NRC কর্মসূচি থেকে বাদও পড়ে। এই প্রশ্নে কিন্তু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক কিন্তু এখনও মুখে কলুপ এঁটে রয়েছে। তারা NRC ও CAA কে আলাদাভাবে দেখাতেই ব্যস্ত।

প্রথমে এই দলিলটি অস্বীকার করলেও পরে এই দলিলের সত্যতা স্বীকার করে পিআইবি। প্রশ্ন হল, যে বিষয় নিয়ে আলোচনাই হয়নি বলে বিজেপি একাধিক নেতা দাবী করছেন, সেটা নিয়ে সেখানে পিআইবি ডকুমেন্ট আকারে দেয় কি করে?

ডকুমেন্টে বলা হচ্ছে, আসামের NRC সঙ্গে বাদবাকি ভারতের NRC আলাদা হবে। বলছে, এটি কেবল নাগরিকপঞ্জিতে নাম লেখানো। বলা হচ্ছেনা, এর সাথে জনগণনার তফাত কি?

আন্দোলনের মুখে পিছু হটছে সরকার। দেশের ১০ জন মুখ্যমন্ত্রী (তারমধ্যে বিজেপি’র জোটসঙ্গী  বিহারের নীতিশ কুমারও রয়েছেন) NRC করতে গররাজি। অন্যান্য জোটসঙ্গী যেমন শিরোমণি আকালি দল, লোক জনশক্তি পার্টি, এআইএডিএমকে চাপ বাড়াচ্ছে।

বাইরের দূর্বার নাছোড়বান্দা আন্দোলন ও ভেতরের শরীকী চাপ- সরকারকে পিছু হটাচ্ছে। ধীরে হলেও এটা হচ্ছে।

Facebook Comments